বন্যার আশংকা : বাড়ছে পানি

 জিএসএস নিউজ২৪বিডি ডটকম ডেস্ক :  দেশের প্রধান প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে ভারী বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানির কারণে  তিনটি নদীর পানি তিনটি পয়েন্টে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

আগামী দু’একদিনের মধ্যে বগুড়া, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ ও গাইবান্ধা- এই চার জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হতে পারে বলেও পূর্বাভাস দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।  পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, শনিবার বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া টাঙ্গাইলের এলাসিনে ধলেশ্বরী নদীর পানি বিপদসীমার ২ সেন্টিমিটার ও সোমেশ্বরী নদীর পানি নেত্রকোণার কমলাকান্দায় বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূইয়া বলেন, ‘ব্রহ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা-পদ্মা নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ছে। এটা আগামী আরও কয়েক দিন অব্যাহত থাকতে পারে।’

আগামী ৪৮ ঘণ্টায় বগুড়া, জামালপুর ও সিরাজগঞ্জের জেলাগুলোর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সেখানকার নদীগুলোর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। নদীর তীরবর্তী চরগুলোতে পানি উঠতে পারে। যমুনা নদীর পানি রোববারের মধ্যে জামালপুরের বাহাদুরাবাদ পয়েন্ট ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে। দু’একদিনের মধ্যে গাইবান্ধায় ফুলছড়ি পয়েন্টেও যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে।’  এই তিন জেলা ছাড়াও আরও নতুন নতুন জেলা প্লাবিত হতে পারে জানিয়ে আরিফুজ্জামান বলেন, ‘তবে বন্যা দীর্ঘমেয়াদী হবে না। স্বল্পমেয়াদী এ বন্যা দেশের মধ্যাঞ্চলেও দেখা দিতে পারে বলে আমরা মনে করছি।’

ইতোমধ্যে আবহাওয়া অধিদফতরের গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি জানিয়েছিল, সেপ্টেম্বর মাসের দ্বিতীয়ার্ধ থেকে শেষ অবধি দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যা হতে পারে।  মৌসুমী বায়ু সক্রিয় হওয়ার কারণে গত কয়েক দিন ধরে দেশের উত্তরাঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে নীলফামারীর ডিমলায়, সেখানে ১৪২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

Edited : Benzamin, Updated 2018-11-08, saturday,   at 03-24pm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*