তাজমহল মসজিদে নামাজে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে শুরু হলো পূজা

জিএসএস নিউজ২৪বিডি ডটকম আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করেছে ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগ (এএসআই) উদ্ভট এক কারণ দেখিয়ে তাজমহলের মসজিদে নামাজ পড়া নিষিদ্ধ করায় এমনিতেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত। মুসলিম বিশ্বে এনিয়ে চলছে ক্ষোভের ঝড়। সেই ক্ষোভ আর ধর্মীয় অবমাননার আগুন আরো উস্কে দিয়ে সেখানে নির্বিবাদে পূজা অর্চনার শুরু করেছে তীব্র মুসলিম বিরোধী বজরং দলের সদস্য ৩ রমণী।

শনিবার তারা পূজার উদ্দেশ্যে মসজিদটিতে ঢোকেন। তাজমহল মসজিদে ধূপবাতি জ্বালিয়ে সেখানে গঙ্গার পানি ছিটিয়ে নির্বিগ্নে পূজা শেষ করেন। সেটি ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে  রক্ষণশীল ওই সংগঠনটির জেলা সভাপতি মীনা দেবী দেবাকর সদম্ভে বলেন, ‘মুসলমানরা যদি সারাদিন নামাজ পড়তে পারে, তাহলে আমরা কেন পূজা দিতে পারব না?’

তবে সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের কমান্ড্যান্ট ব্রজ ভুষণ জানান, বিষয়টি নাকি তারা অবহিত নন। তিনি বলেন, ‘জওয়ানরা সবসময় মসজিদটিতে ঢুকতে পারেন না, ফলে তাদের সেখানকার ঘটনা জানা সম্ভব নয়।’

এ বিষয়ে প্রতœতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগের প্রতœতত্ত্ববিদ (আগ্রা সার্কেল) বসন্ত শংকর টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেন, ‘আমাদের কাছে সংবাদ আসার পর সেখানে এএসআইয়ের কর্মীদের পাঠিয়েছি। তবে ধূপবাতি বা পূজার কোনো উপকরণ সেখানে পাওয়া যায়নি।’

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রীয় বজরং দলের নেতা গোবিন্দ পরাশার শুক্রবার  হুমকি দেন তাজমহলে পূজা করা হবে। পূজার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেন, ‘এএসআইয়ের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘনের কারণে যদি মুসলমানদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়া না হয়, তাহলে হিন্দু কর্মীদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে?’

তাজমহল মসজিদের ইমাম সাদিক আলী মনে করে মসজিদে পূজা দেয়াটা ঠিক হয়নি। যারা এ কাজ করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি তাজমহলের মসজিদে নামাজ পড়া নিষিদ্ধ করেছে ভারতের প্রতœতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগ (এএসআই)। তবে শুক্রবারের নামাজে শুধু স্থানীয়রাই অংশ নিতে পারবেন। এএসআই বলছে, যারা ভারতের নাগরিক নন তারা তাজমহল মসজিদে শুক্রবারের নামাজ পড়তে পারবে না বলে গত জুলাইয়ে স্থানীয় প্রশাসন যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল, তা বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্ট। তারা সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়ন করেছে মাত্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*