Home / আন্তর্জাতিক / টরন্টোতে শহীদ মিনার

টরন্টোতে শহীদ মিনার

রফিক ভূঁইয়া, টরেন্টো, (কানাডা) : কানাডায় বসবাসরত বাঙ্গালীদের বেশীর ভাগ টরন্টো শহরের অধিবাসী। কমিউনিটি হিসেবেও বাঙ্গালীরা এখানে এখন মোটামুটি ধর্তব্যের মধ্যে অবস্থান করছে। অনেকেই মূলধারার রাজনীতির সাথেও জডিয়ে পড়েছেন। ব্যবসা বানিজ্য, ধর্মীয় এবং সামাজিক কর্মকান্ড কিম্বা সংস্কৃতি যাই বলুন সবক্ষেত্রেই বাঙ্গালীর সরব পদচারনা লক্ষ্যনীয়। ইতোমধ্যে একজন বাঙ্গালী নারী ওন্টারিও প্রাদেশিক পার্লামেন্টের সদস্য হওয়ার গৌরব লাভ করেছেন। আমাদের নতুন প্রজন্মের ছেলে মেয়েরাও স্ব স্ব মেধা ও কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে মূলধারার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে শুরু করেছে। এক কথায় বলতে গেলে বলতে হয় , বাঙ্গালী অভিবাসীরা কানাডীয় সমাজে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ় করতে আগের চেয়ে অনেক বেশী সচেতন ও তৎপর। এখানে গত কয়েক বছরে নানা পেশায় দেশ থেকে অনেক দক্ষ ও গুনি জ্ঞানী লোক এসেছেন। এইসব যোগ্য মানুষদের পদচারনায় বাঙ্গালী অধ্যুষিত ডেনফোর্থ এলাকা এখন বেশ সরগরম। সেই সাথে কমিউনিটি কার্যক্রমও অনেক বেড়েছে।
এবারের সামারও অন্যান্য বছরের চেয়ে অনেকটাই ব্যতিক্রম । এবার অনেকগুলো বড বড মেলার যেমন আয়োজন হয়েছে তেমনি সব বয়সী মানুষের উপস্থিতিও ছিলো ব্যাপক। মেলাকে কেন্দ্র করে এবার অনেক সাংস্কৃতিক কর্মী,শিল্পী, গায়কদের অংশ গ্রহনও ছিলো উল্লেখযোগ্য। তবে সবচেয়ে আশার সংবাদ হলো টরন্টোতে আমাদের জাতীয় গর্ব ওঐতিহ্যের ধারক জাতীয় শহীদ মিনার নির্মাণের কাজটি এবার আলোর মুখ দেখার সকল বাঁধা বিপত্তির অবসান হয়েছে। জাতীয় শহীদ মিনার নির্মান নিয়ে গত কতক বছর ধরে যে টানাপোডন ও দলাদলী চলছিলো তার অবসান হয়েছে গুনিজনদের সামনে এসে হাল ধরার ফলে। সর্বশেষ ব্যরিস্টার চয়নিকা দত্তকে সভাপতি করে যে গ্রহনযোগ্য কমিটি গঠন হয়েছিলো সেই কমিটি গত চার বছরে অনেক চড়াই উৎরাই অতিক্রম করে প্রজেক্টটিকে চুড়ান্ত রূপদান করতে সক্ষম হয়েছেন।
গতকাল সন্ধ্যায় স্থানীয় একটি বাঙ্গালী রেস্তোরায় উক্ত কমিটির আয়োজিত এক মত বিনিময় সভায় উদ্যোক্তারা শহীদ মিনার নির্মান কার্যক্রম ও এর অগ্রগতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে জানান যে, শহীদ মিনার নির্মান সম্পর্কিত সকল বাধা বিপত্তির অবসান হয়েছে। তারা বলেছেন, অচিরেই নির্মান কাজের টেন্ডার আহ্বান করা হবে। তার আগে সিটি কর্তৃপক্ষের এক লাখ পন্চাশ হাজার ডলারের চাহিদা পুরন করতে হবে। এই অর্থ সংগ্রহের জন্যে এমাসের ২২ তারিখ ফান্ড রাইজিং ডিনারের আয়োজন করা হয়েছে বলেও উদ্যাক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ডেনফোর্থের ডেনটোনিয়া পার্কে শহীদ মিনার নির্মাণের স্থানও চুড়ান্ত হয়েছে। বাঙ্গালীর গর্বের এই মিনার এদেশে বাংলা ও বাঙ্গালীকে নি:সন্দেহে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করবে। জয় হোক বাংলা ও বাঙ্গালীর।

 

About gssnews2

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*