Home / চট্টগ্রামের খবর / এলজিইডি’র বরকল উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স সম্প্রসারণ : প্রকল্প ৪ বছরেও শেষ হয়নি ভবন ও হলরুম নির্মাণ কাজ

এলজিইডি’র বরকল উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স সম্প্রসারণ : প্রকল্প ৪ বছরেও শেষ হয়নি ভবন ও হলরুম নির্মাণ কাজ

বিহারী চাকমা,(রাঙ্গামাটি) : রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার বরকল উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন বরকল উপজেলা পরিষদের প্রশাসনিক ভবন সম্প্রসারণ ও হলরুম নির্মাণ কাজটি বিগত সাড়ে ৪ বছরেও শেষ হয়নি। এতে মাত্র এক-তৃতীয়াংশ কাজ সমাপ্ত করে চার তলা বিশিষ্ট ভবণটির কাজটি ফেলে রাখা হয়েছে বছরের পর বছর। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন থেকে এলজিইডি কর্তৃপক্ষকে মৌখিকভাবে বারংবার তাগাদা দিলেও তা মোটেই তোয়াক্কা করা হয়নি বলে জানা গেছে। এতে করে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের মনে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিগত সাড়ে চারটি বছরে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়নি কোন কর্তৃপক্ষ।
এলজিইডি উপজেলা অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ৪ কোটি ৮২ লক্ষ ৯৩ হাজার টাকার প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়। মেসার্স লুম্বিনী এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে এ কাজ দেয়া হয়। লুম্বিনী এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী চিরঞ্জীব চাকমা। ইতিমধ্যে সংশিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি প্রায় অর্ধেক টাকা চলতি বিল বাবদ উত্তোলন করে নিয়েছেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় অসমাপ্ত অবস্থায় পড়ে আছে চারতলা ফাউন্ডেশনের ভবনটির কাজ। আর হলরুমের কাজে মোটেই হাত দেয়া হয়নি এখনও। ইটের স্তুপে জং ধরে বিবর্ণ হয়ে গেছে সব ইট। কালো সাইন বোর্ডে প্রকল্পের নাম, বাস্তবায়নকারী সংস্থা-স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নাম, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিকানা, ভবনের ব্যয় বরাদ্দ – অর্থ বছর ও কাজ শেষ করার সময়সুচি উল্লেখ রয়েছে পরিষ্কারভাবে। এতসব পরিষ্কারভাবে উল্লেখ থাকার পরও স্থানীয় প্রশাসন নির্বিকার। দেখার যেন কেউই নেই। কাজ করারও কেউ নেই। এ নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহলের কাছে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন।
অভিযোগ রয়েছে, বরকল উপজেলা এলজিইডি অফিসের উপজেলা প্রকৌশলী, হিসাব রক্ষক মৃনাল কান্তি চাকমা, সার্ভেয়ার সুজিত চাকমা ও কার্য সহকারী প্রণয় চাকমা সবাই ঠিকাদারের সাথে যোগসাজশ করে কাজটি দীর্ঘদিন ধরে ফেলে রাখে। মৃনাল ও সুজিত চাকমা ঠিকাদারের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে অফিসের কাগজপত্র ঠিক রাখেন। বরকল উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা প্রকৌশলীকে ম্যানেজ করে প্রকল্পের কাজ ফেলে রাখা হচ্ছে বছরের পর বছর। এমনকি ঢাকাস্থ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করে প্রকল্পটির টাইম এক্সটেনশন করার জন্য বরকল উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরের উক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজেরা তৎপরতা চালান বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।
বরকল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বিধান চাকমা বলেছেন, ভবন ও হলরুম নির্মাণ কাজ যথাসময়ে শেষ না হওয়ায় তাঁরা সমস্যায় রয়েছেন। ঠিকমত অফিস করতে পারছেন না। এলজিইডি কর্তৃপক্ষ ও ঠিকাদারকে বার বার এ ব্যাপারে তাগাদা দিলেও কোন লাভ হয়নি বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশলী মো: আমিনুল ইসলাম বলেন, ঠিকাদারকে ফোন দিলেও ফোন ধরেন না। খুব মন্থর গতিতে কাজ চলছে। কাজের এ অবস্থা চলতে থাকলে আগামী মাসে মিটিং এ ঠিকাদারের লাইসেন্স বাতিল করা হবে বলে তিনি জানান।
ঠিকাদার চিরঞ্জীব চাকমা জানিয়েছেন, বিভিন্ন পরিস্থিতির কারনে তিনি উক্ত কাজটি যথাসময়ে সম্পন্ন করতে পারেন নি এবং এলজিইডি কর্তৃপক্ষ তাকে হলরুমের নকশা না দেওয়ার কারনে কাজে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

 

 

About gssnews2

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*