Home / চলতি খবর / গোপালগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বেত ও বাঁশের তৈরী চারুশিল্প

গোপালগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বেত ও বাঁশের তৈরী চারুশিল্প

এম শিমুল খান, গোপালগঞ্জ : উপযুক্ত রক্ষনাবেক্ষণ ও সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অভাব এবং বাজারে প্লাষ্টিক সামগ্রীর দাপটে চারুশিল্পের চাহিদা দিন-দিন কমে যাওয়ার কারণে গোপালগঞ্জ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে বেত ও বাঁশের তৈরী চারুশিল্প। তাই গোপালগঞ্জের প্রসিদ্ধ বাঁশ শিল্পীরা তাদের ভাগ্যের উন্নয়নের জন্য বাপ-দাদার রেখে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী পেশা ছেড়ে বেছে নিচ্ছে অন্য পেশা। উপযুক্ত দক্ষতা ও প্রশিক্ষণ না থাকায় অন্য পেশায় তাদের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে পারছে না। ফলে বর্তমানে তাদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।
বাহারি ও মনকাড়া রকমারী প্লাষ্টিক সামগ্রী বাজার দখল করার কারণে বেত ও বাাঁশের তৈরী জিনিসের প্রতি মানুষ দিন দিন আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। বেত ও বাঁশ শিল্পের সুনাম বিদেশেও ছড়িয়ে রয়েছে । কিন্তু আধুনিক ও যান্ত্রিক যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে টিকে থাকা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তাই দিন দিন চারু শিল্পের বিশ্বজোড়া খ্যাতি যশ ধীরে ধীরে ম্লান হয়ে অলাভজনক শিল্পে পরিনত হয়ে যাচ্ছে। যে কারণে চারু শিল্পীরা বাপ-দাদার রেখে যাওয়া পেশা ছেড়ে বেছে নিচ্ছে নতুন পেশা। যে পেশায় তারা একেবারে আনাড়ী।
ফলে গোপালগঞ্জে বেত ও বাঁশ শিল্পীরা এখন মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। যারা বাঁশ দিয়ে তৈরী চাটাই, কুলা, ঝুড়ি, ডালা, চালুন, খাঁচা, খারই, মোড়া, ডরি, ধামা, পেলেসহ বিভিন্ন ধরনের টুকরি-সাজিসহ হরেক রকম দ্রব্যসামগ্রী তৈরী করে স্থানীয় বাজার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বাইরেও বাজারজাত করত। কিন্তু বর্তমানে এ পেশায় সরকারি পৃষ্টপোষকতা না থাকায় বাঁশ ও বেতের যোগান না থাকা এবং প্লাষ্টিক সামগ্রীর দাপটে চারু শিল্পের চাহিদা প্রায় শেষ হয়ে গেছে।
এ পেশার সাথে জড়িত মান্দার দাশ, দুলাল দাশ, জালাল গাজী, স্বপন দাশ ও বিপুল দাশ বলেন, প্রয়োজনীয় কাঁচামাল সরবরাহ ও সরকারী পৃষ্টপোষকতা না থাকায় এবং বাজারে বাহারী প্লাষ্টিক সামগ্রীর দাপটে চারু শিল্পের ভগ্ন দশা।
তারা আরো বলেন এখন আমাদের খবর কেউ রাখেনা। আমাদের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। চারজনের সংসার আমার কখনো কখনো এক বেলা না খেয়ে থাকতে হচ্ছে অথচ আমাদের সে খবর কেউ রাখেনা।

About gssnews2

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*