চট্টগ্রাম   রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১  

শিরোনাম

লক্ষ্মীপুরে ক্ষত-বিক্ষত রামগতি শুষ্ক মৌসুমেও মেঘনার ভাঙন অব্যাহত

লক্ষ্মীপুরে ক্ষত-বিক্ষত রামগতি শুষ্ক মৌসুমেও মেঘনার ভাঙন অব্যাহত

জিএসএসনিউজ ডেস্ক :    |    ০৭:২৯ পিএম, ২০২১-০২-২১

লক্ষ্মীপুরে ক্ষত-বিক্ষত রামগতি শুষ্ক মৌসুমেও মেঘনার ভাঙন অব্যাহত

রিয়াজ মাহমুদ বিনু, লক্ষ্মীপুর : শুষ্ক মৌসুমেও মেঘনার তীব্র ভাঙনে লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার কয়েকটি গ্রাম নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে করালগ্রাসী মেঘনা গিলে খাচ্ছে ওইসব গ্রামের দুই-তৃতীয়াংশ এলাকা। ভাঙনকবলিত গ্রামগুলো হচ্ছে-উপজেলার আসলী পাড়া, রামগতি বাজার, রামদয়াল ও কমলনগর উপজেলার চরকালকিনি ইউনিয়নের নাছিরগঞ্জ ও হাজীগঞ্জ, সাহেবেরহাট ইউনিয়নের কাদির পণ্ডিতেরহাট, চরফলকন ইউনিয়নের লুধুয়া ফলকন এবং পাটারীরহাট ইউনিয়নের দক্ষিণ চরফলকন। বর্তমানে শুষ্ক মৌসুমেও ভাংগনের তীব্রতা ভয়ংকর হয়ে উঠেছে। এতে করে ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটছে ওইসব গ্রামের বাসিন্দাদের। যে কারণে এ শুষ্ক মৌসুমেই তারা ভাঙন রোধে প্রস্তাবিত প্রকল্পের অনুমোদনসহ অর্থ ছাড়ের দাবি জানান।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, শুষ্ক মৌসুমেও মেঘনা তীরবর্তী এলাকাগুলোতে তীব্র ভাঙন চলছে। ভাঙনের মুখে পড়ে নদীতে বিলীন হচ্ছে ফসলি জমি, বাড়িঘর, মসজিদ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট ও পোল-কালভার্টসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন স্থাপনা।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯৭০ সালের দিকে চরকালকিনি ও চরফলকন ইউনিয়ন দু’টিতে মেঘনার ভাঙন শুরু হয়।
দীর্ঘ পাঁচ দশকে মেঘনার এ অব্যাহত ভাঙনে মতিরহাট,চরকাঁকড়া,কাদির পন্ডিতেরহাট,
চরসামছুদ্দিন ও তালতলি,সাহেবেরহাট,হাজিগন্জ,  চরজগবন্ধু, মাতব্বরনগর এবং চরফলকন ইউনিয়নের চরকটোরিয়া, চরকৃষ্ণপুর, মাতব্বরচর ও পাতারচর এবং পাটারীরহাট ইউনিয়নের উরিরচর, পশ্চিম চরফলকন ও ডিএস ফলকনসহ প্রায় ১৪ টি গ্রাম সম্পূর্ণ মেঘনার গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এতে করে ওইসব গ্রামগুলোসহ বর্তমানে ভাঙনকবলিত পাঁচটি গ্রামের প্রায় অর্ধলাখ মানুষ সহায় সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছেন। এদের বেশির ভাগই পার্শ্ববর্তী জেলা নোয়াখালীর সদর, সুবর্ণচর, লক্ষ্মীপুর সদর ও রামগতি উপজেলার চরবাদাম, চরপোড়াগাছা ও কমলনগর উপজেলার চরকাদিরা ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন এলাকায় বাড়িঘর নির্মাণ করে কোনোরকমে বসবাস করছেন। বাকিরা আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়িবাঁধের উপর। যাদের অধিকাংশেরই এখন দিন কাটে অর্ধাহার ও অনাহারে।
জানা গেছে, গত ৫০ বছরের ভাঙনে মেঘনাগর্ভে বিলীন হয়েছে এসব এলাকার প্রায় ১৫ হাজার একর ফসলি জমি, সরকারি-বেসরকারি ১৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, আশ্রয়ণ কেন্দ্রের পাঁচটি কলোনি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ এবং কয়েক কিলোমিটার কাঁচা-পাকা সড়কসহ অসংখ্য মসজিদ, বিভিন্ন স্থাপনা ও হাটবাজার।
এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মেঘনার এ ভাঙনরোধে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার উদ্যোগ নেয়া হলেও তা যেমন সফল হয়নি; তেমনি সরকারিভাবে নেয়া উদ্যোগও দেখছে না সফলতার মুখ। ২০০৯ সালে প্রথমবার মহাজোট সরকার গঠনের পর আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট মাহবুবুর রহমানের প্রচেষ্টায় ‘মেঘনার ভাঙন থেকে রামগতি ও কমলনগরকে রক্ষায় নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্প’ নামে একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়। প্রকল্পটির আওতায় ২০১৪ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ১৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। প্রথম পর্যায়ের ওই অর্থ দিয়ে কমলনগর উপজেলার মাতব্বরহাট এলাকায় এক কিলোমিটার ও রামগতি উপজেলায় সাড়ে চার কিলোমিটার এলাকায় ব্লকবাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু কমলনগর উপজেলার অপর ১২ কিলোমিটার এলাকা অরক্ষিত থেকে যায়। ভাঙনের তাণ্ডবলীলা চলতে থাকায় গেল বর্ষা মৌসুমে লুধুয়া ফলকন এলাকায় আপদকালীন কাজের অংশ হিসেবে প্রায় আট কোটি টাকা ব্যয়ে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ডাম্পিং করা হয়। কিন্তু ভাঙনের তীব্রতায় তাও নদীতে বিলীন হওয়ার পথে। এখন তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ের অর্থ ছাড় না হওয়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙন প্রতিরোধে যথাযথ উদ্যোগ নিতে পারছে না। যে কারণে এলাকাবাসী একনেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা প্রকল্পটি অনুমোদন ও অর্থ ছাড়সহ দ্রুত টেকসই বাঁধ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানান।
স্থানীয়দের অভিমত,বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগে মেঘনার ভাঙন রোধে বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু না হলে এবং ভাঙন এভাবে অব্যাহত থাকলে আগামী দু’বছরের মধ্যে রামগতি-কমলনগর উপজেলার অনেক গুরুত্বপূর্ণ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফারুক আহমেদ জানান, মেঘনার ভাঙনরোধে কমলনগর ও রামগতি উপজেলার তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজের নতুন ডিপিপি প্রস্তুত করা হয়েছে। বর্তমানে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে থাকা নতুন প্রস্তাবনাটি অনুমোদন হলে ভাঙনরোধে টেকসই বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হবে।
স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অব.) আবদুল মান্নান জানান, দীর্ঘ কয়েক যুগ ধরে মেঘনার ভাঙনে রামগতি-কমলনগর উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ সর্বস্ব হারিয়েছেন। ভাঙন প্রতিরোধে ব্যক্তিগত অর্থে বাঁধ নির্মাণসহ তিনি বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেছেন।২য় পর্যায়ে একটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। আশাকরি অল্প সময়ের মধ্যে এটি অনুমোদন হবে।


 

রিটেলেড নিউজ

সিরাজগঞ্জে বসুন্ধরা গ্রুপের কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ 

সিরাজগঞ্জে বসুন্ধরা গ্রুপের কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ 

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : এনামুল হক, সিরাজগঞ্জ থেকেঃ কালের  কন্ঠ শুভ সংঘ  সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার আয়োজনে বসুন্ধরা গ্রুপ কর্...বিস্তারিত


বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর শাখার নির্বাহী কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন

বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর শাখার নির্বাহী কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : রফিক ইসলাম :  বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও  উত্তর শাখার নির্বাহী কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন আহ...বিস্তারিত


হোমনায় শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উদযাপন

হোমনায় শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উদযাপন

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : মোর্শেদুল ইসলাম শাজু, হোমনা : কুমিল্লার হোমনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জৈষ্ঠ্য প...বিস্তারিত


কুমিল্লা জেলা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে মাইল ফলক অর্জন

কুমিল্লা জেলা পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে মাইল ফলক অর্জন

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : মোহাম্মদ শাহ্ আলম শফি (কুমিল্লা) :  কুমিল্লা পুলিশ সুপার মোঃ ফারুক আহমেদ গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ...বিস্তারিত


মুরাদনগরে ইভটিজিংয়ের অপমান সইতে না পেরে দাখিল পরিক্ষার্থীনীর আত্মহত্যা!

মুরাদনগরে ইভটিজিংয়ের অপমান সইতে না পেরে দাখিল পরিক্ষার্থীনীর আত্মহত্যা!

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : বেলাল উদ্দিন আহাম্মদ, মুরাদনগর(কুমিল্লা)প্রতিনিধি: কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় ইভটিজিংয়ের অপমা...বিস্তারিত


কুমিল্লা জেলা অটো টেম্পু অটোরিকশা সিএনজি ড্রাইভার শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে উপহার সামগ্রী বিতরণ 

কুমিল্লা জেলা অটো টেম্পু অটোরিকশা সিএনজি ড্রাইভার শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে উপহার সামগ্রী বিতরণ 

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : মোহাম্মদ শাহ্ আলম শফি: করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে বিশ্বের অর্থনৈতিক বিপর্যয় ও তার  প্রভাব আমাদের...বিস্তারিত



সর্বপঠিত খবর

অধ্যক্ষ মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল খোশনবীশের দুরদর্শীতায় মীরপুর বাংলা স্কুল এ্যান্ড কলেজের শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সম্মাননা লাভ

অধ্যক্ষ মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল খোশনবীশের দুরদর্শীতায় মীরপুর বাংলা স্কুল এ্যান্ড কলেজের শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সম্মাননা লাভ

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : আসাদুজ্জামান বাবুল : গ্রীক বীর 'আলেক্সান্ডার দ্য গ্রেট' ভারতীয় উপমহাদেশে পদার্পণ করেই এখনকার প...বিস্তারিত


কীর্তিমান সমাজ সেবক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর কর্মজীবন ও কমলগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ছলিমবাড়ী পরিবারের কৃতিত্ব 

কীর্তিমান সমাজ সেবক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর কর্মজীবন ও কমলগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ছলিমবাড়ী পরিবারের কৃতিত্ব 

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : শাহ মোঃ মোতাহির আলী আজমী, কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার): মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলা একটি বৈচিত্র্যময় উ...বিস্তারিত



সর্বশেষ খবর