চট্টগ্রাম   সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১  

শিরোনাম

কাশিমপুর কারাগার বোম্বের সিনেমাকেও হার মানিয়েছে

কাশিমপুর কারাগার বোম্বের সিনেমাকেও হার মানিয়েছে

জিএসএসনিউজ ডেস্ক :    |    ০৪:১৭ পিএম, ২০২১-০১-২৩

কাশিমপুর কারাগার বোম্বের সিনেমাকেও হার মানিয়েছে

সবকিছু বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরো

 

আবদুল গাফফার মাহমুদ কথায় বলেটাকা হলে বাঘের চোখও মেলে এই অতি প্রাচীন বহুল পরিচিত প্রবাদটি বাংলাদেশের জন্য খুবই প্রযোজ্য ইদানিং পৃথিবীর অনেক দেশেই  এই বহুল পরিচিত প্রবাদের ন্যায় অনেক ঘটনাই ঘটে থাকে যাক, আজকে  বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা না করে বাংলাদেশে ঘটমান কতিপয় বিষয় নিয়ে  একটু আলোকপাত করতে চাই

সহযোগী দৈনিকগুলোতে প্রকাশিত খবরের শিরোনামে শুধু বিস্মিতই নই রীতিমত মুষড়ে পড়ার মত অবস্থা একটি খবর হলো-“কারাগারে হলমার্ক জিএমে নারীসঙ্গ তদন্তে কমিটি, ডেপুটি জেলার সহ প্রত্যাহার তিন এখন প্রশ্ন হচ্ছে, দেশে চলছে এক ক্রান্তিকাল শুধু দেশে নয় বলতে গেলে সারা বিশ্বই  করোনা আক্রান্ত এই করোনার কালে চলছে এক ধরণের বিশেষ পরিস্থিতি বাংলাদেশের কারাগারগুলোও তার বাইরে নয় করোনাকালে কারাগারগুলোতে বন্দীদের সঙ্গে আত্মীয়-স্বজনের দেখা-সাক্ষাৎ সরকারী নির্দেশেই বন্ধ তবে বিশেষ প্রয়োজনে যদি কারো সঙ্গে দেখা করতে হয়, তবে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয় বিস্ময়কর বিষয় হলো, প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, “কারা অধিদফতরকে অবহিত না করেই গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার- একজন বন্দীর সঙ্গে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করেছেন এক নারী ওই বন্দীর নাম তুষার আহমেদ তিনি সোনালী ব্যাংকের একটি শাখা থেকে ঋণের নামে হাজার কোটি  টাকা আত্মসাৎকারী হলমার্ক কোম্পানীর জিএম ছিলেন এই তুষার আবার  হলমার্ক কেলেংকারীর  মূল হোতা তানভীর মাহমুদের ভায়রা

খবর অনুযায়ী সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, কারাগারে গিয়ে তুষারের সঙ্গে এক নারী অন্তরঙ্গভাবে মিশছেন নিয়মভঙ্গ করে একজন চিহ্নিত বন্দীর সঙ্গে কারাগারে বসে দীর্ঘ সময় নারীসঙ্গের ঘটনায় তোলপাড় চলছে কর্তৃপক্ষ দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন  তাদেরকে কার্য্যদিবসের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে

এই চমকপ্রদ চরম বিস্ময়কর উদ্বেগজনক ঘটনাটি ঘটেছে গত জানুয়ারী বিবরণমতে, জানুয়ারী দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ওই নারী কারাগারের ভেতরে ঢোকেন বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে বেরিয়ে যান অর্থাৎ দীর্ঘ ঘন্টা তিনি কারাগারে অবস্থান করেছেন সিসি ক্যামেরায় পুরো ঘটনাটি ধরা পড়েনি এর মধ্যে গভীর রহস্য লুকিয়ে রয়েছে  একটি এ্যাম্বুলেন্সে তিনি কারা ফটকে আসার পর ডেপুটি জেলার গোলাম  সাকলাইন সিনিয়র জেলসুপার রতœ রায় ওই নারীকে অন্য কর্মচারীদের সামনেই গ্রহণ করেন নি:সন্দেহে এর জন্য মোটা দাগের অর্থ লেনদেন হয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে তুষার আহমেদের সঙ্গে অপরিচিত ওই নারী অন্তরঙ্গতা ছাড়াও নানা ভঙ্গিতে বেশ কিছু সময় কাটান কারা ফটকের ভেতরে এটা কি ভাবে সম্ভব? এই প্রশ্ন সব মহলে ভেসে বেড়াচ্ছে এই ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর পরই কারা কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে ছাড়া জেলা প্রশাসক এস.এম. তরিকুল ইসলাম অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আবুল কালামকে প্রধান করে পৃথক একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন গত ১২ জানুয়ারী

 সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া সিসি ক্যামেরায় ওই ভিডিওতে দেখা যায়, অন্য দুই যুবকের সঙ্গে ওই নারী কারাফটক পেরিয়ে অফিস