চট্টগ্রাম   রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১  

শিরোনাম

শ্রীমঙ্গলে লন্ডন প্রবাসীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার

শ্রীমঙ্গলে লন্ডন প্রবাসীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার

জিএসএসনিউজ ডেস্ক :    |    ০৮:৩৮ পিএম, ২০২১-০২-০৮

শ্রীমঙ্গলে লন্ডন প্রবাসীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার

চিনু রঞ্জন তালুকদার, মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গলে সবুজ এলাকায় মুসলীম ধর্মের অনুসারী হয়েও সনাতনী ধর্মালম্বীদের দেবোত্তর স্থান (ভৈরব থলী) রক্ষানাবেক্ষণ করে মানবতার এক চরম দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন বিশিস্ট সমাজসেবক লন্ডন প্রবাসী আবু জালাল খান। তিনি বিভিন্ন পূজা,বিয়ে, অসহায় দরিদ্রদের সহযোগীতাসহ তাদের সামাজিক অনুষ্টানে অংশ গ্রহণ করেন। দেবোত্তর স্থান ভৈরব থলীতে  ভূমির মালিকানা থাকলেও শুরু থেকেই (১৯৯৩ইং) সনাতনী ধর্মালম্বীদের ( সেই ভৈরব থলীতে) পূজা পার্বণে ভক্তদের ফেলে দেওয়া ভোগ সামগ্রীর ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার, গাইড ওয়ালসহ ভক্তদের বিভিন্ন ভাবে সহযোগীতা করে আসছেন। সম্প্রতি এসব কাজে জনপ্রিয়তায়  ঈর্ষানিত হয়ে কতিপয় কিছু লোক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মীয় উস্কানি সৃষ্টি করার উদ্যাশ্যে সেইভৈরব থলীর ৪শত বছরের পুরনো গাছের ডাল কেটে পুরো গাছ ছাটাই করেছে জনৈক জালাল খানবলে এসব মিথ্যা বানোয়াট অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে একটি স্বার্থনেষী মহল। সনাতনী ধর্মালম্বী এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা রিংকু দেবনাথ,শিবানী চক্রবর্তী,শফিক মিয়া,বাসার ম্যানেজার সাহেদুল ইসলামসহ একাধিক লোকজন জানান- প্রবাসী আবু জালাল খান একজন মানবতার ফেরিওয়ালা। হিন্দু-মুসলিম ভেদাভেদ ভুলে সমাজসেবা মূলক কাজে সবসময় জড়িয়ে থাকেন। সেই ১৯৯৩ সাল থেকেই ভৈরব থলীর রক্ষনাবেক্ষন করে আসছেন। আমরা সেখানে নিরাপদে বসবাস করতে পারছি। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও তিনি ভৈরব থলীকে ঝুকিমুক্ত রাখতে এবং সকলের মতামতের ভিত্তিতে গাছের ডাল পাতা ছাটাই করেছেন। থলীর পাশ ঘেঁষেই বিদ্যৎ লাইন, বন্ডবেন্ড লাইন, বাসাসহ লোক সমাগম রয়েছে। গাছের ডাল ছাটাই না হলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। তাছাড়া স্থানীয় ভক্তদের কথামতই ছাটাই করা হয়েছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে বলেন- এখানে ৪শত বছরের পুরোনা গাছ কথাটি সঠিক নয়। ১৯৯৩ সালে প্রথমে একটি তেতুল গাছ ছিল। সেই গাছকে বেড়দিয়ে বর্তমানে একটি বটগাছের শাখা প্রশাখা গঁজিয়ে উঠেছে। আমরা স্থানীয় লোকজন এসব মিথ্যা অপপ্রচারের তিব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাই। এসব মিথ্যা অপপ্রচার।  ব্যপারে জানতে চাইলে লন্ডন প্রবাসী আবু জালাল খান জানান- সনাতনী ধর্মালম্বীদের আমি শ্রদ্ধা করি। তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকি। ১৯৯৩ সাল থেকেই ভৈরব থলীর রক্ষনাবেক্ষন করে আসছি। আমার নিজ মালিকানা বাসায় ৬০টি পরিবার বসবাস করে। সেখান প্রায় ৫০টি পরিবার হিন্দু। অপর এক প্রশ্নের জবাবে বলেন- প্রতিবছরে একবার গরু কোরবানি দেই। কিন্তু হিন্দু ভাইদের অসুবিধা হবে এমন বিভেচনায় বাসার ভেতরে গরু কোরবানি করিনা। আমার গ্রামের বাড়ী রাজনগরে নিয়ে গিয়ে কোরবানি করি। সেখানে তাদের ভৈরব থলীর গাছ কেটে ফেলার ঘঠনা সঠিক নয়। আপনারা স্থানীয় লোকজনদের জিজ্ঞাসা করে এর সত্যতা জানতে পারেন। এসব আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার। আমার সামাজিক সম্মান হানি করার জন্য এসব করা হয়েছে। দেশবাসী এসব অপপ্রচারে বিশ্বাস করবেনা। এলাকার জনৈক চন্দন বাবু নামীয় এক ব্যক্তি আমার বাসায় শুরুতে (১৯৯৩ইং) ভাড়াটি হিসাবে থাকতো। সেই সময় সে ভূমির মালিক স্থানীয় প্রভাব বিস্তার করে টাকা দাবী করে। আমার শশুর মানসম্মানের কথা বিভেচনা করে চন্দন বাবুকে কোন মতে কিছু টাকা পয়সা দিয়ে বিদায় করেন। সেই ঘঠনার পুনরাবৃত্তি ঘঠাতে সেই ব্যক্তিসহ কিছু স্বার্থনেষী মহল এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে।

 

 

 

 

রিটেলেড নিউজ

কুমিল্লায় জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস পালিত 

কুমিল্লায় জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস পালিত 

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : মোহাম্মদ শাহ্ আলম আলম শফি, কুমিল্লা :  অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় উৎপাদনশীলতা" এই প্রতিপাদ্যকে ...বিস্তারিত


সিরাজগঞ্জে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রীর মৃত্যু

সিরাজগঞ্জে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রীর মৃত্যু

জিএসএসনিউজ ডেস্ক : : এনামূল হক, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার চর মালশাপাড়া মহল্লায় স্বামীর ছুরিকাঘাত...বিস্তারিত


বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ করলো ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা

বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ করলো ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা

জিএসএস