চট্টগ্রাম   শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১  

শিরোনাম

সংঘবদ্ধ জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে বাড়ী দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

সংঘবদ্ধ জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে বাড়ী দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

জিএসএসনিউজ ডেস্ক :    |    ১০:০৩ পিএম, ২০২১-০২-০২

সংঘবদ্ধ জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে বাড়ী দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিবেদকপ্রবাসী স্বামীর কষ্টার্জিত  টাকায় কেনা বাড়ী সংঘবদ্ধ জালিয়াতচক্র জবরদখলের পাঁয়তারা করছে ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ  বিভিন্ন সরকারী সংস্থায়  অভিযোগ দিয়েও প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেছেন মরিয়ম আক্তার নামে এক ভূক্তভোগী গৃহবধূ

গতকাল মঙ্গলবার সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ  ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশনে এক সংসদ সম্মেলনে তিনি  এই অভিযোগ করেন সময় তার সন্তানরাসহ স্বজনরা উপস্থিত র্ছিলেন

তিনি বলেন, আমার স্বামী মোআলমাস শেখ দীর্ঘ এক যুুগের বেশি সময় ধরে প্রবাসে স্বামীর কষ্টার্জিত  টাকা এবং বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ধার দেনা করে ২০০৬ সালের দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের তাজমহল রোডস্থ  ব্লকসি ২৬/১৭ নম্বর বাড়িটি ক্রয় করি  এই বাড়ির মালিক আব্দুল কুদ্দুস ২০০৫ সালের জানুয়ারি মারা যান মৃত্যুকালে তিনি দুই স্ত্রী যথাক্রমে মাসুমা বেগম  দেলোয়ারা বেগম এবং তিন ভ্রাতা যথাক্রমে আল আরশাদ, সিরাজুল  হক সুরুজ মিয়া এবং  এক ভগ্নি আনোয়ারা বেগমকে রেখে যান  আব্দুল কুদ্দুস সাহেবের কোন সন্তান সন্ততি ছিল না আমি কুদ্দুস সাহেবের  প্রকৃত ওয়ারিশ এবং ভাই বোনদের  নিকট থেকে প্রথমে বাযনা পরে রেজিষ্ট্রিমূলে ৫তলা বাড়িসহ জমি ক্রয় করে ভোগদখলরত ছিলাম  ২০১০ সালের দিকে জনৈক  গাজী জাহিদ হেগাসেনকে তৃতীয় তলা ভাড়া দেই  জাহিদ হোসেন বছর খানেক নিয়মিত বাড়া পরিশোধ করেন হঠাৎ করেই তিনি ভাড়া প্রদান বন্ধ করে দেন কয়েক  মাস এভাবে চলার পর একদিন বহিরাগত সন্ত্রাসী এনে প্রথম দ্বিতীয় তলার ভাড়াটিয়াদের বাড়ি থেকে বিতাড়ণ করে  তা দখলে নেন এবং নিজেকে  বাড়ির মালিক দাবি করতে থাকেন এমনকি  আমাকে প্রাণনাশসহ  নানা ভয়-ভীতি হুমকি দিতে থাকেন দুই শিশু সন্তান নিয়ে আমি তখন দিশেহারা নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়ি  বিষয়টি নিয়ে  থানায় একাধিক অভিযোগ দায়ের ছাড়াও স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন  জনের কাছে ধর্ণা দিয়ে প্রতিকারের কোন পথ খুঁজে পাইনি   গাজী জাহিদ হোসেনের ভাষ্য  অনুযায়ী, মরহুম আব্দুল কুদ্দুসের ওয়ারশান থেকে জনৈক মোশাররফ  হোসেন চৌধূরী বাড়িটি ক্রয় করে জনৈক  হারুন অর রশিদকে পাওয়ার অব এর্টনি  দিয়েছেন  হারুন অর রশিদের কাছ থেকে জাহিদ  হোসেন বায়নানামা দলিলমূলে  বাড়িটি ক্রয় করেছেন পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি কথিত  মোশাররফ হোসেন একজন সরকারি চাকুরে এবং তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিদেশে আছেন  অন্যদিকে ওয়ারশানের কাছ থেকে বাড়ি ক্রয় করার যে দাবি করা হচ্ছে সেটিও ভূয়া মুলত: জালিয়াতির  আশ্রয় নিয়ে  মরহুম  সাহেবের প্রথম স্ত্রী মাসুদা বেগম, নিজের ভাইয়ের মেয়ে মোসাম্মত  সুলতানা বিলকিস মুন্নীকে কুদ্দুস সাহেবের ঔরসজাত  সন্তান বানিয়ে জাল দলিল তৈরি করেছে  আমার অভিযোগের পর, পুলিশ গাজী জাহিদকে দফায় দফায়  ডেকে নিয়ে  বাড়ি কেনার  কাগজপত্র দেখাতে বললেও দখলবাজ জাহিদ তা দেখাতে পারেনি এবং  পুলিশ জাহিদকে ফ্ল্যাট  ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়  কিন্তু কোন কিছুরই তোয়াক্কা করেননি তিনি  অবস্থায়  জালিয়াতকারীদের বিরুদ্ধে  আইনগত  ব্যবস্থা গ্রহণ, তাদের কবল থেকে  আমার বাড়ি রক্ষা এবং জীবনের নিরাপত্ত চেয়ে আমি ২০১৬ সালের দিকে স্বরাষ্ট্র মন